ঘূর্ণিঝড় “রোয়ানু” সংক্রান্ত কিছু তথ্য

পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু। এখন সাগরে শক্তি সঞ্চয় করছে ঘূর্ণিঝড়টি। চট্টগ্রামে ৭, কক্সবাজারে ৬, খুলনা ও মংলা সমুদ্রবন্দরে ৫ নম্বর বিপদ সঙ্কেত দেখাতে বলা হয়েছে।
কিন্তু এর নামকরণ রোয়ানু কেন?  এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের সাগর তীরের আট দেশের আবহাওয়া দপ্তর ও বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার দায়িত্বপ্রাপ্ত প্যানেলের তালিকা অনুযায়ী এ ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে ‘রোয়ানু’।
মালদ্বীপ এ নামটি প্রস্তাব করেছিল। রোয়ানু শব্দটিও মালদ্বীপের। এর অর্থ নারিকেলের ছোবড়ার তৈরি দড়ি।
আরও তথ্য

* রোয়ানু শব্দটি মালদ্বীপ থেকে এসেছে
* রোয়ানু শব্দের অর্থ হলো “নারকেল এর ছোবড়া থেকে সৃষ্ট পাকানো দড়ি ”
* রোয়ানু সর্ব প্রথম ২০১৬ সালে আঘাত হানে “শ্রীলংকা” তে ১৯ মে ২০১৬
* রোয়ানু বাংলাদেশে আঘাত হানে ২১ মে ২০১৬ তারিখে,দুপুর ১২ তে চট্ট্রগ্রাম ও বরিশাল উপকূলে
* রোয়ানু ৫ ঘন্টা বাংলাদেশে গতিশীল ছিল
* ঘূর্ণিঝড় “রোয়ানু” গড় গতিবেগ ছিল প্রায় ১০০ কি.মি
* ঘূর্ণিঝড় “রোয়ানু” দেশের উপকূলে গড় গতিবেগ ছিল ৬০-৮০ কি.মি
* ঘূর্ণিঝড় “রোয়ানু” ব্যাস ছিল ২০০ কি:মি
* ঘূর্ণিঝড় “রোয়ানু” বাতাসের প্রান্তসীমা ৭০০ কি:মি পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল
* ঘূর্ণিঝড় “রোয়ানু” তে ২১ জন মারা গেছে,তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করি
* পরবর্তী ঘূর্ণিঝড় এর নাম কায়ান্ট (মায়ানমার)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *